1. admin@doinikpatuakhali.com : admin :
শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:৪০ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পটুয়াখালীতে সামাজিক সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত পটুয়াখালী জেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীর সমর্থনে জেলা আওয়ামীলীগের বিশেষ সভা পটুয়াখালী জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন পটুয়াখালীতে কোভিড-১৯ প্রতিরোধ বিষয় মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত পটুয়াখালীতে সড়ক দুর্ঘটনায় ছেলের মৃত্যুর পর দু’পা বিচ্ছিন্ন হওয়া মায়েরও মৃত্যু মির্জাগঞ্জ আমড়াগাছিয়া ইউপি উপ-নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের তৃণমূল প্রার্থী বাছাই সভা পটুয়াখালীতে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট-২০২২ শুরু পটুয়াখালীতে র‌্যালী ও আলোচনার মধ্য দিয়ে বিশ্ব নদী দিবস পালিত পটুয়াখালীতে উপজেলা পর্যায়ে প্রকল্প অবহিতকরণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত দশমিনায় কাঁচা রাস্তা পাঁকা রাস্তা করনের দাবিতে মানববন্ধন

দশমিনায় গায়ে আগুন দিয়ে আতœহত্যার চেষ্টা পুলিশের এএসআই’র স্ত্রী’র

স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৫ বার পড়া হয়েছে

পটুয়াখালীর দশমিনা থানায় কর্মরত উপ পুলিশ পরিদর্শক (এএসআই) সহিদুল আলমের স্ত্রী সুমি আক্তার (৩০) নিজ গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টার ঘটনা ঘটেছে।
মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) শেষ রাতের দিকে দশমিনা থানা সংলগ্ন এএসআই এর ভাড়া বাসায় এ ঘটনা ঘটে। বর্তমানে সুমিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।
বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দশমিনা থানার ওসি (তদন্ত) অনুপ দাস।
বাড়ির মালিক হারুন ফরেস্টার বলেন, আমার বাসায় দশমিনা থানার এএসআই সহিদুল আলম তার স্ত্রী নিয়ে থাকেন । বিয়ের পর থেকে বাচ্চা না হওয়ার কারণে প্রায়শই দুশ্চিন্তা ও পাগলামি করতেন সুমি। এ নিয়ে অনেক চিকিৎসক ও কবিরাজ দেখিয়েও কোন লাভ হয়নি।
তবে সহিদুল তার স্ত্রীর প্রতি সব সময় সন্তুষ্ট ছিলেন ও পারিবারিক কোন কলহ ছিলনা। সে সব সময় সুমিকে ভালোবাসতো।
হঠাৎ করে গভীর রাতে সুমি নিজের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেন। পরে সুমির স্বামী ও থানার পুলিশরা তাকে উদ্ধার করে দশমিনা হাসপাতালে নিয়ে যান।
দশমিনা হাসপাতালের চিকিৎসক ডাক্তার মিঠুন চন্দ্র হাওলাদার জানান, এএসআই সহিদুলের স্ত্রী সুমির শরীরের ৫০ শতাংশের বেশি আগুনে পুড়ে গেছে। তাকে রাতেই উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেবাচিমে প্রেরণ করা হয়েছে। সেখান থেকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে বলে তিনি জানতে পেরেছেন বলে জানান।
এ ব্যাপারে দশমিনা থানার ওসি (তদন্ত) অনুপ দাস বলেন, আমরা বিষয়টি অবগত আছি। এএসআই সহিদুলের পারিবারিক কোনো সমস্যা ছিল না। এমনটা কেন করেছে এ বিষয়ে এখনো জানতে পারিনি। বর্তমানে ওই গৃহবধূ ঢাকার একটি হাসপাতালে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

প্রযুক্তি সহায়তায় ইন্টেল ওয়েব